Saturday , 7 December 2019
এই মাত্র পাওয়া
Home » অপরাধ » গাইবান্ধায় পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদকের উপর হামলা

গাইবান্ধায় পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদকের উপর হামলা

এইচ আর হিরু গাইবান্ধাঃ
গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদক ও বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ পলাশবাড়ী উপজেলা শাখার সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী দীলিপ চন্দ্র সাহার উপর প্রকাশ্য দিবালোকে সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছে কতিপয় আওয়ামীলীগ নেতারা।এ ঘটনায় মামলা কিংবা অভিযোগ করলে বাংলাদেশ ত্যাগ করতে হবে বলে হুমকি প্রদান করেছেন ওই নেতারা।
ঘটনাটিঘটেছে ২০ নভেম্বর বুধবার সকাল ১১ টায় উপজেলা সরকারী খাদ্য গুদাম (এলএসডি) সংরক্ষিত এলাকা চত্বরে।
ঘটনার বিবরনে যানাজায়,সারা দেশের ন্যায় ২০ নভেম্বর বুধবার গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলা খাদ্য বিভাগ চলতি মৌসুমে আমন ধান ক্রয়ের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের জন্য তারিখ নিদ্ধারন করে।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা ছিল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্জ্ব একেএম মোকছেদ চৌধুরী বিদুৎ, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা ছিল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মেজবাউল হোসেন,উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আবু বক্কর প্রধান, সাধারন সম্পাদক উপাধ্যক্ষ শামিকুল ইসলাম সরকার লিপন,
উপজেলা কৃষি অফিসার আজিজুল ইসলাম, খাদ্য নিয়ন্ত্রক খন্দকার মাহবুব হোসেন,ভারপ্রাপ্ত গুদাম কর্মকর্তা আব্দুল কাদের বকসীছাড়াও গনমাধ্যম কর্মীরা।
বুধবার সকাল থেকেই পলাশবাড়ী উপজেলায় কর্মরত গনমাধ্যম কর্মীরা উদ্বোধনের সংবাদ কাভারেজ করার জন্য পলাশবাড়ী সরকারি খাদ্য গুদামে অবস্থান করেন।
উপজেলা ক্রয় কমিটির সদস্য শ্রী দীলিপ চন্দ্র সাহা প্রথমে খাদ্য গুদামে প্রবেশ করে।এরপর উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি শহিদুল ইসলাম বাদশা, তার ছোট ভাই উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও যুবলীগ সভাপতি আজাদুল ইসলাম,সহোদর ছোট ভাই সাজাদুল ইসলাম খাদ্য গুদামে প্রবেশ করে।
এসময় ক্রয় কমিটির সদস্য দীলিপ চন্দ্র সাহা স্থানীয় গনমাধ্যম কর্মীদের সাথে আলাপ আলোচনারত অবস্থায় ছিলেন।
উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম বাদশা কোন কারন ছাড়াই ক্রয় কমিটির সদস্য দীলিপ চন্দ্র সাহাকে গালমন্দ শুরু করে গুদাম এলাকা ত্যাগ করতে বলে।
এসময় তিনি কোন কথা না বললে শহিদুল ইসলাম বাদশার নির্দেশে তার ছোট ভাই উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আজাদুল ইসলাম ও সহদর ছোট ভাই সাজাদুল ইসলাম দীলিপ চন্দ্র সাহার উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে দীলিপকে জোর পুর্বক অপহরনের চেষ্টা চালায়।
বারংবার একটি কথাই তারা উচ্চারন করে আমাদের ধান কই!!!আমরা ধান দিবো।নিশ্চুপ দীলিপ সাহা তাদের কোন কথার উত্তর দিতে না পারায় তারা তাকে উল্লেখিত ঘটনায় মামলা হামলা দায়ের করা হলে বাংলাদেশ ত্যাগ করতে হবে বলে হুমকি ধামকি প্রদান করে।
পরে গুদামে অবস্থান করা সাংবাদিকরা তাকে উদ্ধার করে।বিষয়টি তাৎক্ষণিক সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে গাইবান্ধা র‍্যাব-১৩ ক্যাম্পে জানানো হলে
অতিথিদের অনুপস্থিতিতেই ধান ক্রয়ের উদ্বোধন করে এই দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন আওয়ামীলীগের এই তিন নেতা।
ঘটনার প্রায় ১ ঘন্টা পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মেজবাউল হোসেন উপজেলা কৃষি অফিসার আজিজুল ইসলাম গুদাম চত্বরে প্রবেশ করে পুনরায় ধান ক্রয়ের উদ্বোধন করেন।
এসময় ক্রয় কমিটির সদস্য দীলিপ চন্দ্র সাহাকে শারীরিক ভাবে লাঞ্চিত ও অপমানিত করার বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মেজবাউল হোসেন জানান ধান ক্রয়ের অনিয়মের কোন সুযোগ নেই।তবে দীলিপ চন্দ্র সাহা একজন সম্মানী ব্যাক্তি তাকে যারা লাঞ্চিত করেছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহণ করা জরুরী।
উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদক ও হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি, উপজেলা মিল ও চাতাল মালিক সমিতির সভাপতি দীলিপ চন্দ্র সাহা বলেন, দীর্ঘদিন থেকে আওয়ামীলীগের এই নেতা তাকে হুমকি ধামকি অব্যাহত রেখেছিল।বিষয়টি আগে ও গোয়েন্দা সংস্থাকে জানানো হয়েছে।এরই ধারাবাহিকতায় তাকে শারীরিক ভাবে লাঞ্চিত ও হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে।এক পর্যায়ে সন্ত্রাসীরা তাকে অপহরনের চেষ্টা করেছে।সাংবাদিকরা না থাকলে আমাকে অপহরন করে হত্যা জখম খুন সহ মুক্তিপন দাবি করতো।আমি মামলা কিংবা অভিযোগ করলে আমাকে বাংলাদেশ ত্যাগ করতে হবে বলে তারা হুমকি প্রদান করেছে। ঘটনার পর থেকে আমি ও আমার পরিবার চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।আমি আইনগত সহায়তা চেয়ে পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

Leave a Reply